দাবানল কি? কাকে বলে? দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয় ? বিস্তারিত

আজকের আর্টিকেলে আমরা দাবানল নিয়ে আলোচনা করবো। অর্থাৎ এই যেমন – দাবানল কি? দাবানল কাকে বলে? দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয়, সৃষ্টির কারণ এছাড়াও দাবানল থেকে কি ক্ষতি হয় এবস বিষয় নিয়ে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করবো । আপনি যদি এই বিষয়ে আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে এই লেখাটি স্পেশালি আপনার জন্য।

দাবানল কি?

দাবানল হচ্ছে বনভূমি বা বনাঞ্চলে সংঘটিত অপরিকল্পিত বা অনিয়ন্ত্রিত আগুন। যেটা সাধারণত তৃণভূমি বা বনাঞ্চলে বেশি লক্ষণীয়। তবে উত্তপ্ত বা শুষ্ক আবহাওয়াই যে কোন অঞ্চলেই হতে পারে দাবানল।

খরার মতো অত্যন্ত শুষ্ক অবস্থায় এবং বাতাসের গতিবেগ যখন বেশি থাকে তখন দাবানলের ঝুঁকি তুলনামূলক বেড়ে যায়। দাবানল বিশেষ করে পরিবহন, যোগাযোগ ব্যাবস্থা, বিদ্যুৎ ও গ্যাস পরিষেবা এবং জল সরবরাহকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করতে পারে।

এছাড়াও দাবানল বেশ বাজে ভাবে বায়ুদূষণ করে এবং মানব সম্পদ, খাদ্য শষ্য এবং প্রাণী ও পশুপাখির জানমালের মারাত্মক ক্ষতি করে ।

দাবানল কি সেটা তো আমরা জানলাম, এবার চলুন দাবানল কেনো সৃষ্টি হয় এবং কিভাবে ই বা সৃষ্টি হয় সে সম্পর্কে জানা যাক।

দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয়?

দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয়?
দাবানল সৃষ্টির কারণ

দাবানল সাধারণত খরা পূর্ণ বা শুষ্ক ঝোপঝাড়পূর্ণ এলাকায় বেশি হয়ে থাকে। দাবানল বিভিন্ন কারনে হতে পারে। এর মাঝে প্রাকৃতিক এবং মানবসৃষ্ট উভয় কারণ ই হতে পারে দাবানলের কারণ।

দাবানলের প্রাকৃতিক কারণ

প্রধানত দুটি প্রাকৃতিক কারনে দাবানল দেখা দেয় একটি হল বজ্রপাত এবং আগ্নেয়গিরির আগ্নেতপাতের কারণে। কোন শুষ্ক বনাঞ্চল এলাকায় বজ্রপাত হলে দাবানল দেখ দিতে পারে আবার আগ্নেগিরি থেকে নির্গত লাভা অথবা বিভিন্ন পদার্থের জলন্ত টুকরা থেকেও দাবানলের সৃষ্টি হতে পারে। এরপর পরিবেশভেদে এবং পরিস্থিতিভেদে বিভিন্নভাবে এটি ছড়িয়ে পড়ে।

বিশেষজ্ঞদের মতে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাবের কারনেও দাবালনের সৃষ্টি হতে পারে। গবেষকরা দাবানলের কারণ নিয়ে গবেষণা করতে যেয়ে বেশ কিছু প্রভাবকের কথা জানান যেমন – দীর্ঘদিন ধরে মাত্রাতিরিক্ত তাপমাত্রা, বাতাসের আদ্রতা, বজ্রপাত বেড়ে যাওয়া এবং অধিক পরিমাণে খরা অথবা শুষ্ক বনভূমি অঞ্চলে দাবানলের ঝুকি বাড়িয়ে তোলে।

পর্তুগালের একজন বিশেষজ্ঞ জানান যে – সামনে আমাদের জন্য আরো ভয়াবহ দিন অপেক্ষা করছে, জলবায়ু পরিবর্তনের আরো কঠিনরুপ দেখার জন্য সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে। বিগত বছরে আমরা যতগুলা বিপর্যয় দেখেছি সামনের বিপর্যয়গুলা তার থেকেও বেশি ভয়ানক হবে।

দাবানলের মানবসৃষ্ট কারণ

এর আগে আমরা দাবানলের প্রাকৃতিক কারণ সম্পর্কে জেনেছি। তবে পরিবেশ বিজ্ঞানিদের মতে প্রাকৃতিক কারণ থেকে বর্তমানে মানবসৃষ্ট কারণেই দাবানল বেশি হয়ে থাকে।

ধারনা করা হয় দাবানল সঙ্ঘটিত হওয়ার ৮৫% কারণ ই মানবসৃষ্ট। যেমন – ক্যাম্পফায়ার, ধ্বংসাবশেষ পোড়ানো, সিগারেট জাতীয় দ্রব্য যেমন- সিগারেট, সিগার, বারুদ বা দিয়াশলাই, লাইটার বিষ্ফরনে কারণে অথবা আতশবাজি, গ্যাস বেলুন বিস্ফরন গাড়ি দুর্ঘটনা এমনকি পরক্ষভাবেও বিভিন্নভাবে আগুন লাগে যার প্রভাবে সৃষ্টি হয় দাবানল।

দাবানল থেকে কি কি ক্ষতি হয়

দাবানলের কারণে যে ধরণের সমস্যা তৈরি হয় এবার আমরা সে সম্পর্কে জানবো। আমরা আগেই জেনেছি যে কোন অঞ্চলে খরা এবং শুষ্কতা বেশি হলে এবং সেই সাথে বাতাসের তীব্রতা যদি থাকে বেশি তাহলে দাবানল আরো প্রলয় আকারে ছড়িয়ে পড়ে।

আর এর প্রভাবে তৈরি হয় নানা ধরণের সমস্যা – বাধাগ্রস্থ হয় পরিবহণ ও যোগাযোগ ব্যাবস্থা সেই সাথে জ্বালানি, গ্যাস ও পানি সরবরাহে ও নানা সমস্যা দেখা দেয়। পাশাপাশি দাবানলের সৃষ্ট ধোঁয়া পরিবেশ দূষণে প্রভাব ফেলে।

এছাড়াও মানুষের ঘরবাড়ি তথা অবকাঠামোগত ক্ষয় ক্ষতির পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্তয় হয় খাদ্য শস্য, মানুষ সহ সকল প্রকার প্রাণী ও পশুপাখিও।

শুধু তাই নয়, মানব স্বাস্থ্যের উপর দাবানলের বিরুপ প্রভাব রয়েছে। দাবানল আশেপাশের এলাকায় বায়ু দূষণ বাড়ায় যার প্রভাবে চোখ ও শ্বাসতন্ত্রের জ্বালা থেকে শুরু করে ফুসফুসের কার্যকারিতা হ্রাস, ব্রঙ্কাইটিস, হাঁপানি এবং হৃদযন্ত্রের ব্যর্থতা বৃদ্ধি এবং অকাল মৃত্যু সহ আরও গুরুতর ব্যাধি পর্যন্ত হতে পারে।

wildfire damage 1998 - 2017

এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী ১৯৯৮ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত দাবানল এবং আগ্নেয়গিরির কারণে সারা বিশ্বে প্রায় ৬২ লক্ষের ও বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শ্বাসকষ্টে ভুগে আগুনে পুড়ে ও আহত হয়ে প্রাণহানি হয়েছে প্রায় ২০০০ এর ও বেশি মানুষ।

২০২০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে দাবানলের কারণে প্রায় ২১.৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছিল। যা কিনা এর আগের বছরের তুলনায় উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে, উল্লেখ্য যে এর আগের দাবানলের ফলে প্রায় ১৪.৮২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সম্পত্তি ক্ষতি হয়েছিল।

আরো জানুন –

বন্যার্তদের সহায়তায় ফ্রী টকটাইম

শেষ কথা

আজকের আর্টিকেলে আমি দাবানল নিয়ে বিস্তারিত ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করেছি, আশা করি দাবানল কি? কাকে বলে? দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয় ? এবং দাবানল সৃষ্টির কারণ পাশাপাশি দাবানলের ক্ষয়ক্ষতি ও জানতে পেরেছেন। এর পরও কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানাতে পারেন। লেখাটি ভাললাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ ❤

4.5/5 - (6 votes)

5 thoughts on “দাবানল কি? কাকে বলে? দাবানল কিভাবে সৃষ্টি হয় ? বিস্তারিত”

  1. ধন্যবাদ স্যার, এতো সুন্দর করে বিস্তারিত ভাবে লেখার জন্য। বুঝতে সুবিধা হল অনেক। আল্লাহ আমাদের এমন প্রাকৃতিক দুর্যোগের হাত থেকে রক্ষা করুক। আমিন

    Reply
  2. ধন্যবাদ, সুন্দর ভাবে বোঝানোর
    জন্য। 👍

    Reply

Leave a Comment